কেন্দ্রীয় অনুষ্ঠানে ব্রাত্য ‘ইমপা’, আয়োজকদের ‘অজ্ঞতা’ নিয়ে ক্ষোভপ্রকাশ সম্পাদক পিয়ার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টলিউড ইন্ডাষ্ট্রিতে যে কোনও কাজের ক্ষেত্রে ‘ইমপা’ বা ইস্টার্ন ইন্ডিয়া মোশন পিকচারস অ্যাসোসিয়েশনের (EIMPA) গুরুত্বের কথা সকলেই জানেন। এহেন পরিস্থিতিতে সোমবার ন্যাশনাল ফিল্ম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন (NFDC) আয়োজিত অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ পাননি ‘ইমপা’র সম্পাদক পিয়া সেনগুপ্ত (Piya Sengupta)। কেন আমন্ত্রণ জানানো হয়নি, তা নিয়ে রীতিমত ধন্দে পড়েছেন তিনি। ক্ষোভও প্রকাশ করেছেন তিনি।

‘ইমপা’ (EIMPA) সম্পাদক পিয়া সেনগুপ্তর সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানিয়েছেন, ” আমি জানিনা কেন ইমপাকে বলা হয়নি। যারা এই অনুষ্ঠানের দায়িত্বে ছিলেন তাঁরা কী অজ্ঞ? হয় তাঁরা জানেনই না টলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে ইমপার গুরুত্ব কী অথবা তাঁরা জেনেবুঝেই এই কাজটা করেছেন। তবে এটা ঠিক এনএফডিসির ইমেজ ইমপার লাগবেনা।”

[আরও পড়ুন: স্ত্রী নুসরতকে ডিভোর্সের নোটিস নিখিলের! ‘ভুয়ো খবর’, দাবি অভিনেত্রীর]

সোমবার এনএফডিসির অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর (Prakash Javadekar) ডাকে সাড়া দিয়ে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন টলিউডের একঝাঁক তারকা। বাংলা ইন্ডাস্ট্রির হাল ফেরাতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসেন ঋতুপর্ণা, আবীর, পাওলিদের মতো প্রথম সারির অভিনেতা-অভিনেত্রীরা।

 অনুষ্ঠানে কি তবে রাজনৈতির রং লেগেছে? সেই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে পিয়া সেনগুপ্ত বলেছেন, “ইমপা নিউট্রাল ফিল্ড থেকে কাজ করে। ব্যক্তিগত কারণে যে কেউ যে কোনও দলে যেতে পারেন। কিন্তু যদি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কিত কোনও বিষয় হয়, তবে সেখানে ইমপার থাকাটা দরকার ছিল। যাঁরা এ ধরনের কাজ করেছেন, তাঁরা কখনওই সুস্থ মস্তিষ্কের হতে পারেন না।”

[আরও পড়ুন: কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর ডাকা বৈঠকে ঋতুপর্ণা, আবীর, পাওলি-সহ বহু টলি তারকা, শুরু জল্পনা]

এরপরেই ক্ষোভ প্রকাশ করে ইমপা সভাপতি জানিয়েছেন, ” অনেকেই অভিযোগ করেছেন ইন্ডাস্ট্রিতে ঠিকভাবে কাজ করা যাচ্ছেনা। তাঁদের বলব, এখানে সকলে মিলেমিশে কাজ করেন, টেকনিশিয়ান থেকে শুরু করে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কোনও সমস্যা থাকলে তা সমাধানের চেষ্টা করে ইমপা। কিন্তু যদি কারও ব্যক্তিগত সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে ইমপা সেখানে কিছু করতে পারবে না।”

উল্লেখ্য, এই বিষয়ে কেন্দ্রকে কোনও চিঠি দেবেন কিনা, সেই প্রশ্নের উত্তরে পিয়া সেনগুপ্ত বলেছেন, ” অনেক সমস্যা যেমন সেন্সর বোর্ড নিয়ে কাজ হোক বা লকডাউনের পর হল খোলা, নানা সমস্যা নিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছিল মন্ত্রককে। কিন্তু এই বিষয়ে কোনও রকম চিঠি দেওয়া হবে না। এটা সম্পূর্ণ এনএফডিসির সিদ্ধান্ত। এবং এটা সত্যিই আশ্চর্যজনক ঘটনা।”

বিস্তারিত পড়ুন::